অনেকেই জানতে চায় তোমার এইম ইন লাইফ কি? উত্তরে আমি খালি হাসি। মাঝে মাঝে অতিপ্রাকৃত কিছু একটা বলেদিই। কারন এর উত্তর আমিও আসলে জানি না।
তবে এইটুক খালি জানতাম বিজ্ঞানী হবার মঞ্চায়। কিন্তু কিসের বিজ্ঞানী তাতো জানি না।
যখন যে বিষয়ের কোন নতুন কিছু শুনি তখন সেইটাই পড়বার ইচ্ছে তৈরী হয়। কোয়ান্টাম মেকনিক্স এর কথা মনে পড়লেই মনে হয় ইলেকট্রন এর দৌড়াদৌড়ির চেয়ে মজার কিছু আছে নাকি?
আমি এই জিনিষই পড়বো… ব্লা ব্লা ব্লা… যা দেখি তাই পড়বার মঞ্চায়। পদ্মার ভাঙনের মতই দ্রুতগতিতে চলছিল আমার এইম ইন লাইফ বদলানো।
সেদিন হঠাৎ মনে হইল অ্যাস্ট্রোনাট হবো। কি মজার একটা পেশা! রকেট নিয়ে আকাশে পাড়ি জমাবো… টেলিস্কোপ নিয়া আকাশপানে দৃষ্টি বোলানোটাই তখন পেশা হয়া যাবে! কি মজা…

আর চাঁদে যাওয়ার প্রবল ইচ্ছাতো আছেই। তবে অন্যদের রকেটে চইড়া না। নিজের দেশে নিজেরাই বানাবো সেই রকেট।
আর মঙ্গল এ যাওয়ারও ইচ্ছা আছে। যদি সুযোগ পাই তাহলে তো…!
মহাকাশচারী হওয়ার ভুত মাথায় ভালভাবেই ঢুকছে। নীল আর্মস্টং কি নিয়ে পড়ছে, কোথায় কাজ করছে, এইগুলা ঘাটাঘাটি শুরু করছি। কারন উনিই এখন আমার আদর্শ।

Use Facebook to Comment on this Post